নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীগণ যোগাযোগ করুন!
হাসিনা-মোদী বৈঠক: কুশিয়ারার পানি প্রত্যাহারসহ ৭ চুক্তি

হাসিনা-মোদী বৈঠক: কুশিয়ারার পানি প্রত্যাহারসহ ৭ চুক্তি

ডেস্ক রিপোর্ট :  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি সফরে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সাতটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সই হয়েছে।
মঙ্গলবার দুপুরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠক শেষে এসব স্মারক সই হয়। স্মারক সই শেষে দুই প্রধানমন্ত্রী যৌথ বিবৃতি দেন।

সমঝোতা স্মারকগুলো হলো-
কুশিয়ারা নদী থেকে বাংলাদেশের ১৫৩ কিউসেক পানি প্রত্যাহারের সমঝোতা স্মারক। এতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কবির বিন আনোয়ার। ভারতের পক্ষে সই করেন জলশক্তি মন্ত্রণালয়ের পানিসম্পদ, নদী উন্নয়ন ও গঙ্গা পুনরুজ্জীবন বিভাগের সচিব পঙ্কজ কুমার।

বৈজ্ঞানিক সহযোগিতা বিষয়ে ভারতের বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের (সিএসআইআর) সঙ্গে বাংলাদেশের সিএসআইআরের সমঝোতা স্মারক সই হয়। এতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখ। ভারতের পক্ষে সই করেন সিএসআইআরের মহাপরিচালক ড. এন. কালাইসেলভি।

বাংলাদেশের সুপ্রিম কোর্ট ও ভারতের ভুপালে অবস্থিত ন্যাশনাল জুডিসিয়াল অ্যাকাডেমির মধ্যে সমঝোতা স্মারক। এতে বাংলাদেশের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল গোলাম রাব্বানি এবং ভারতের পক্ষে বিচারপতি এ.পি. সাহি সই করেন।

ভারতের রেলওয়ের প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটগুলোতে বাংলাদেশ রেলওয়ের কর্মীদের প্রশিক্ষণের জন্য দুদেশের রেল মন্ত্রণালয়ের সমঝোতা স্মারক সই হয়। এতে বাংলাদেশের পক্ষে ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোহাম্মদ ইমরান এবং ভারতের পক্ষে রেলওয়ে বোর্ডের মুখ্য নির্বাহী পরিচালক ভি জি ভুমা সই করেন।

বাংলাদেশ রেলওয়ের তথ্যপ্রযুক্তিগত সহযোগিতার জন্য ভারত ও বাংলাদেশের রেল মন্ত্রণালয় আরেকটি সমঝোতা স্মারক সই করে। এতে বাংলাদেশের পক্ষে ভারতে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোহাম্মদ ইমরান এবং ভারতের পক্ষে দেশটির রেলওয়ে বোর্ডের ইডিটি (ট্রাফিক) দীপক কুমার ঝা সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

ভারতের রাষ্ট্রীয় সম্প্রচারমাধ্যম ‘প্রসার ভারতী’র সঙ্গে বাংলাদেশ টেলিভিশনের সমঝোতা স্মারক। এতে বাংলাদেশের পক্ষে সই করেন বিটিভির মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন এবং ভারতের ‘প্রসার ভারতী’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মায়াঙ্ক কুমার আগারওয়াল।

বাংলাদেশের বিটিসিএল ও ভারতের এনএসআইএলের মধ্যে মহাশূন্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে সহযোগিতাবিষয়ক সমঝোতা স্মারক। এতে বিএসসিএলের চেয়ারম্যান ও সিইও ড. শাহজাহান মাহমুদ এবং এনএসআইএল চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড. রাধাকৃষ্ণাণ সই করেন।

এদিকে, মোদীর সাথে বৈঠক শেষে বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে প্রতিবেশী কূটনীতির রোল মডেল হিসেবে অভিহিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি সইসহ দুই দেশের মধ্যকার অমীমাংসিত সব সমস্যার শিগগিরই সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।
মঙ্গলবার নয়াদিল্লির হায়দরাবাদ হাউসে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে যৌথ বিবৃতি দেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা তাঁর বিবৃতিতে বলেন, ‘আমি আবার বলছি যে বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও নিকটতম প্রতিবেশী ভারত। বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক প্রতিবেশী কূটনীতির রোল মডেল হিসেবে পরিচিত।’

কুশিয়ারা নদীর পানির বিষয়টি সুরাহা করতে পারায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ধন্যবাদ জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমাদের সব মিলিয়ে ৫৪টি অভিন্ন নদী রয়েছে। আমি আশা করি, যতক্ষণ প্রধানমন্ত্রী মোদি এখানে রয়েছেন, বাংলাদেশ ও ভারত এ সমস্যাগুলোর সমাধান করে ফেলবে।’

নরেন্দ্র মোদী বলেন, আগামী ২৫ বছরে ভারত ও বাংলাদেশের বন্ধুত্ব নতুন উচ্চতায় যাবে বলে আশা প্রকাশ করি। বাংলাদেশ ভারতের সবচেয়ে বড় উন্নয়ন ও বাণিজ্য অংশীদার মন্তব্য করে মোদি বলেন, আজ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সফর আমাদের স্বাধীনতার মহোৎসবের মধ্যে হচ্ছে। আমার বিশ্বাস, আগামী ২৫ বছরে ভারত ও বাংলাদেশের বন্ধুত্ব নতুন উচ্চতায় যাবে।

এদিকে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মঙ্গলবার ভার্চুয়ালি খুলনার রামপালে ১ হাজার ৩২০ মেগাওয়াট (৬৬০ মেগাওয়াটের ২টি) মৈত্রী সুপার ক্রিটিক্যাল কয়লাচালিত তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ ৫টি প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে রূপসা নদীর ওপর রেল সেতু, খুলনা-দর্শনা ও পার্বতীপুর-কাউনিয়া রেলপথ।

ভারতের লাইন অব ক্রেডিটের অধীনে ১ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারসহ মোট ২ বিলিয়ন ডলারে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরি হচ্ছে।
৫ দশমিক ১৩ কিলোমিটার রূপসা রেলসেতুটি ৬৪ দশমিক ৭ কিলোমিটার খুলনা-মোংলা বন্দর সিঙ্গেল ট্র্যাক ব্রডগেজ রেল প্রকল্পের একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ। এটি প্রথমবারের মতো মোংলা বন্দরকে খুলনার সঙ্গে রেলপথে যুক্ত করবে। একই সঙ্গে বাংলাদেশের মধ্য ও উত্তর অংশের সংযোগ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পেট্রাপোল ও গেদে সীমান্তে সংযোগ স্থাপন করবে।

দুই প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সড়ক ও জনপথ বিভাগকে ২৫টি প্যাকেজে সড়ক নির্মাণের যন্ত্রপাতি সরবরাহেরও উদ্বোধন করেন।
খুলনা দর্শনা রেললাইন সংযোগ প্রকল্পটি বর্তমান (ব্রডগেজ দ্বিগুণ) অবকাঠামোর একটি আপগ্রেডেশন, যা গেদে-দর্শনা থেকে খুলনার বর্তমান ক্রস বর্ডার রেল সংযোগকে সংযুক্ত করবে। এর ফলে ২ দেশের মধ্যে, বিশেষ করে ঢাকার সঙ্গে মোংলা বন্দরের রেল যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে। এই প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৩১২ দশমিক ৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

পার্বতীপুর-কাউনিয়া রেললাইনটি বিদ্যমান মিটারগেজ লাইনকে ডুয়েলগেজ লাইনে রূপান্তরের জন্য ব্যয় ধরা হয়েছে ১২০ দশমিক ৪১ মিলিয়ন ডলার। প্রকল্পটি দিনাজপুরের বিরল ও পশ্চিমবঙ্গের রাধিকাপুরের বিদ্যমান ক্রস বর্ডার রেলের সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করবে এবং দ্বিপাক্ষিক রেল সংযোগ বৃদ্ধি করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2022 Todaysylhet24.com
Desing & Developed BY DHAKATECH.NET