নোটিশ:
প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে, আগ্রহীগণ যোগাযোগ করুন!
শুষ্ক মওশুমে পানি পাবে কুশিয়ারা

শুষ্ক মওশুমে পানি পাবে কুশিয়ারা

ডেস্ক রিপোর্ট : বুধবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভাপতিত্বে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা, সীমান্ত নদী কুশিয়ারা থেকে ১৫৩ কিউসেক জল প্রত্যাহারের বিষয়ে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ)-এ অনুমোদন দিয়েছে। একটি সরকারি প্রেস বিজ্ঞপ্তি থেকে একথা জানা গেছে।

১ নভেম্বর থেকে ৩১ মে পর্যন্ত শুষ্ক মওশুমে পানির প্রয়োজনের জন্য অভিন্ন সীমান্ত নদী কুশিয়ারা থেকে ভারত ও বাংলাদেশ প্রত্যেকে ১৫৩ কিউসেক পানি প্রত্যাহারের বিষয়ে ভারতের জলশক্তি মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশের পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মধ্যে ২০২২ এর ৬ সেপ্টেম্বর সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়। এই সমঝোতা স্মারকটি আসাম সরকারকে শুষ্ক মওশুমে কুশিয়ারা নদীর প্রবাহ থেকে ১৫৩ কিউসেক পানি প্রত্যাহার করারও ছাড়পত্র দেবে। পানি প্রত্যাহারের বিষয়টি পর্যবেক্ষণের জন্য ভারত-বাংলাদেশ উভয় দেশ একটি যৌথ মনিটরিং টিম গঠন করবে।

এর আগে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারত সফরকালে ভারতের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টনের বিষয়টিও দ্রুত সমাধান হবে বলে আশ্বাস দেন। একটি সরকারি প্রেস বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, তিনি উভয় দেশের মধ্যে সম্পর্ক তুলে ধরেন এবং ভারতকে বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং নিকটতম প্রতিবেশী হিসেবে অভিহিত করেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাথে একটি যৌথ বিবৃতিতে বলেছিলেন, দুই দেশ এর আগে অনেক অসামান্য সমস্যার সমাধান করেছে এবং আমরা আশা করি যে তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি সহ সমস্ত অমীমাংসিত সমস্যার তাড়াতাড়ি সমাধান হবে। তিস্তা নদী বিরোধ ভারত ও বাংলাদেশের দ্বিপাক্ষিক আলোচনার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। উভয় দেশ তাদের পারস্পরিক সীমান্তের কাছে ফারাক্কা ব্যারেজের জল ভাগাভাগি করার জন্য ২০১১ সালে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করে। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী মোদির নেতৃত্বের প্রশংসা করে বলেন, আমি মোদিজির দূরদর্শী নেতৃত্বের প্রশংসা করি যা আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে গতি প্রদান করে চলেছে।

ভারত বাংলাদেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও নিকটতম প্রতিবেশী। ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রতিবেশী কূটনীতির রোল মডেল হিসাবে পরিচিত। চারদিনের ভারত সফরে গেছেন হাসিনা। দুই দেশের সম্পর্ক আরও জোরদার করতে তিনি প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা করেছেন। আত্মনির্ভর ভারত-এর জন্য প্রণীত রেজুলেশনগুলি অর্জনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য শেখ হাসিনা মোদিকে তার শুভেচ্ছা জানান। ভারত ও বাংলাদেশ আজ সাতটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




© All rights reserved © 2022 Todaysylhet24.com
Desing & Developed BY DHAKATECH.NET